মামাদের খুশি করতে আর উদ্যোগ নিল বাংলাদেশ!

৩ আগস্ট থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। পাঁচ টি টোয়েন্টি ঘিরে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া এর মধ্যে একটি সিরিজ হতে চলেছে। দীর্ঘ কয়েক বছর পর দেখা মিলল অস্ট্রেলিয়া। তাই বিসিবি অস্ট্রেলিয়াকে অনেক সময় এবং অস্ট্রেলিয়ার আবদার গুলো মেনে নিচ্ছে বিসিবি। তাদের আবদারে কোনরকম ত্রুটি রাখছেন না বিসিবি।
পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে আগামী ৩ আগস্টে। কিন্তু সিরিজ শুরুর সপ্তাহখানেক আগে থেকেই আলোচনায় অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর।

এর কারণ ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অদ্ভূত সব দাবি, যা শোনামাত্র অবশ্যই পালনীয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের।


এ শর্ত মানার ক্ষেত্রে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন জানিয়েছেন, বিসিবির হাতে আর কোনো সুযোগ ছিল না।

এক কথায় যে কোনো মূল্যে সিরিজের সফল সমাপ্তি চায় বিসিবি। কারণ নিরাপত্তা ইস্যুতে টালবাহানা অস্ট্রেলিয়দের নিত্যসঙ্গী। এবার জুড়েছে করোনা ইস্যু।

অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া অদ্ভুত সব শর্তের মধ্যে অন্যতম, মাঠে ক্যামেরা ক্রু প্রবেশ নিষিদ্ধ। সময়মতো কোয়ারেন্টিনে না যাওয়ায় খেলতে পারবেন না মুশফিক-লিটন। একই কারণে মিরপুর গ্রাউন্ডের প্রধান কিউরেটর গামিনির মাঠে প্রবেশ নিষিদ্ধ।

এ ছাড়া সাত দিনে একই ভেন্যুতে পাঁচ ম্যাচসহ ডেডিকেটেড হোটেল ও বিমানবন্দরে বিশেষ ব্যবস্থায় ইমিগ্রেশনের শর্তটি ইতোমধ্যে পালন করেছে বিসিবি।


এবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে খুশি করতে আরেকটি উদ্যোগ নিল প্রশাসন।

জানা গেল, সিরিজ চলাকালীন অস্ট্রেলিয়া দল মাঠে প্রবেশ করলে স্টেডিয়াম এলাকায় জনসাধারণ চলাচলও থাকবে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে। রাস্তায় থাকতে পারবে না কোনো যানবাহন। সাদা পোশাকে নিরাপত্তা বাহিনীও নিয়োজিত থাকবে।

এমন সব তথ্য দিলেন মিরপুর বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার আ স ম মাহাতাব উদ্দিন।

গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘শ্রীলংকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল এসে খেলে গেছে মিরপুরে। সেই দুই সফরের চেয়েও বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি অস্ট্রেলিয়া দলকে। এর আগে নিরাপত্তা ইস্যুতে তারা বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ বাতিল করেছিল। তাই এতসব আয়োজন তাদের বেলায়। প্রতিটি ম্যাচের দিনে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল থেকে মাঠে আসা-যাওয়ায় পথে জিরো ট্রাফিক থাকবে। নিয়মিত নিরাপত্তা বাহিনীর পাশাপাশি সাদা পোশাকে বিশেষ বাহিনী নিয়োজিত থাকবে। সর্বমোট তিন স্তরে নিরাপত্তা থাকবে। পুরো এলাকায় জনসাধারণ চলাচল নিয়ন্ত্রিত হবে। সব মিলিয়ে যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমরা সর্বদা প্রস্তুত।’

টিম অস্ট্রেলিয়ার জন্য এসব সুযোগ ও বাড়তি নিরাপত্তাকে অতিরঞ্জিত করে না দেখতে অনুরোধ করেছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন।

এর মধ্যে আরও জানিয়েছেন অস্ট্রেলিয়া তাদের আফজাল গুরু আজম ভাবে নিয়ে গেছে। তারপরও বিসিবি সে অস্ট্রেলিয়ার দলকে তাদের সাধ্যমতো আবদার গুলো মেনে নিতে হচ্ছে কারণ তারা চেষ্টা করছে যদি এদের সাথে খেলাতেই হয় তাহলে তাদের আবদার গুলো মেনে নিতেই হবে। আর বর্তমানে পরিস্থিতিতে এভাবেই তাদের ইনভেন্স করতে হবে জানিয়েছেন। তাহলে তো একটা ভালো আয়োজন হবে।

0/Post a Comment/Comments