দাদুর দুর্দান্ত বোলিংয়ে ও রাজস্থান হেরে গেল !

মোস্তাফিজুর রহমান দুর্দান্ত বোলিংয়ে করার পরেও রাজস্থান ম্যাচটি হেরে গেল। চোখধাঁধানো বল করলো আবারও মোস্তাফিজুর রহমান আইপিএল। এই ম্যাচের তার বোলিং লাইন ছিল দুর্দান্ত। 



দিল্লি ক্যাপিটালসের মতো এক শক্তিশালী দল কে ১৫৪ রানে আটকে দিয়েছিল রাজস্থান। কিন্তু অবশেষে শেষ হাসি দেখল সেই দিল্লি ক্যাপিটালস।

দিল্লির ক্যাপিটাল এর বিপক্ষে ব্যাটিং নেমে রাজস্থান ১২১ রান করে ৬ উইকেট হারিয়ে দিল্লির সাথে ম্যাচটি হেরে গেল রাজস্থান। রাজস্থান রয়্যালস ৩৩ রানের বড় একটি ব্যবধানে হেরেছে।

রাজস্থান রয়্যালসের ১৫৪ রানে তাগের দিয়েছিল দিল্লি ক্যাপিটালস।১৫৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে তাদের শুরুটা ভালো যায়নি। শুরুতেই তারা উইকেট হারায়। এই পর তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। প্রথম থেকেই উইকেট হারিয়ে তাদের খেলাটি চাপে পড়ে যায় আর প্রথম থেকে উইকেট যাওয়ার কারণে তারা ম্যাচটি জিততে পারেনি।

প্রথম ওভারের শেষ বলে আবেশ খান ফেরান রাজস্থানের উদ্বোধনী ব্যাটার লিভিংস্টোনকে। ১ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৬ রান সংগ্রহ করে রাজস্থান। এরপর দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই যশস্বী জয়সওয়ালকে ফেরান এনরিচ নর্টজে।

দুই উদ্বোধনী ব্যাটারকে হারানোর পর স্যামসন আর মিলার মিলে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে। কিন্তু রবিচন্দ্রন অশ্বিন তার প্রথম ওভারে বল করতে এসেই শিকার বানান ডেভিড মিলারকে। ১০ বলে ৭ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। এরপর ২৪ বলে ১৯ রান করে রাবাদার বলে আউট হন মহিপাল। ৪৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঢেকে যায় রাজস্থানের।

খড়কুটোর মতোই ভেঙে পড়া রাজস্থানের ব্যাটিংকে পথ দেখাতে পারলেন না রায়ান পরাগও। মাত্র ২ রান করে অক্ষর প্যাটেলের বলে বোল্ড হন তিনি। শেষ পর্যন্ত সাঞ্জু স্যামসন ৭০ রানে অপরাজিত থাকলেও দলকে জয়ের বন্দরে ভেড়াতে পারেননি। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১২১ রানেই থেমে যায় রাজস্থানের ইনিংস। দিল্লি ক্যাপিটালস ম্যাচটি জিতে নেয় ৩৩ রানে।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নড়বড়ে শুরু হলেও শেষ পর্যন্ত দিল্লি ক্যাপিটালসের ইনিংস থেমেছে ১৫৪ রানে। মুস্তাফিজের রাজস্থান রয়্যালসকে জিততে হলে করতে হবে ১৫৫ রান।


এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান শিখর ধাওয়ানকে হারায় দিল্লি ক্যাপিটালস। চতুর্থ ওভারে কার্তিক ত্যাগির বলে বোল্ড হন শিখর। আউট হওয়ার আগে করেন মাত্র ৮ রান। শুরু থেকেই আত্মবিশ্বাসী ছিলেন না দিল্লির দুই ওপেনার। শুরু থেকে সেভাবে রানও করতে পারেনি তারা। শিখর আউট হওয়ার পর পৃথ্বীও প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন। ১০ রান করে সাকারিয়ার বলে লিভিংস্টোনের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন পৃথ্বী।

অবশেষে উইকেটের দেখা পান ‘কাটার মাস্টার’ মুস্তাফিজুর রহমানও। এবারের ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) দ্বিতীয় পর্বে দ্বিতীয় ম্যাচে এসে দলের হয়ে ব্রেকথ্রু এনে দেন ‘দ্য ফিজ’।

দিল্লি অধিনায়ক রিশভ পন্তকে সাজঘরে ফেরান মুস্তাফিজ। আউট হওয়ার আগে ২৪ বলে ২৪ রান করেন পন্ত। এর আগে প্রথম ম্যাচে মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে দুর্দান্ত বোলিং করলেও কোনো উইকেট পাননি। যদিও ফিল্ডাররা দুটো ক্যাচ মিস না করলে বাংলাদেশের বোলিংয়ের অন্যতম ভরসা এই বোলারের নামের পাশে দুটি উইকেট যোগ হতো।

দলীয় কাপ্তানের পর ৩২ বলে ৪৩ করে ফিরে গেছেন শ্রেয়াস আয়ারও। শুরুতে শিখর এবং পৃথ্বীকে পরপর হারিয়ে চাপে পড়েছিল দিল্লি। তারপর পন্ত এবং শ্রেয়াসের উইকেটও হারায় তারা। চেতন সাকারিয়ার ওভারে মোট ১২ রান নেয় দিল্লি। হেটমায়ার নিজেই দু'টো চারের সাহায্যে ১১ রান করেন। তবে ১৬ বলে ২৮ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলার পর মুস্তাফিজের বলে আউট হন হেটমায়ার। 

রাজস্থানের পক্ষে মুস্তাফিজ ও সাকারিয়া ২ টি করে উইকেট নেন। এছাড়া কার্তিক ত্যাগি এবং রাহুল তেওয়াটিয়া ১টি করে উইকেট পান। 


0/Post a Comment/Comments